• ২৮শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১২ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২২শে রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

বিনামূল্যে আমেরিকা থেকে ভ্যাকসিন প্রাপ্তির নেপথ্যে যে ৪ বাংলাদেশী আমেরিকান

bilatbanglanews.com
প্রকাশিত জুলাই ২৩, ২০২১
বিনামূল্যে আমেরিকা থেকে ভ্যাকসিন প্রাপ্তির নেপথ্যে যে ৪ বাংলাদেশী আমেরিকান

বিবিএন ডেস্ক: স্যালুট কীর্তিমান চার জন বাংলাদেশী-আমেরিকানকে, বিনামূল্যের এই ভ্যাকসিন পাওয়ার নেপথ্যে যারা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন।

কার্ডিওলজিস্ট প্রফেসর ডা. চৌধুরী হাফিজ আহসান, কার্ডিওলজিস্ট প্রফেসর ডা. মাসুদুল হাসান, নেফ্রলজিস্ট প্রফেসর ডা. জিয়াউদ্দিন আহমেদ সাদেক ও সাবেক সিনিয়র ইউএন অফিসিয়াল মাহমুদ উস শামস চৌধুরীর ব্যক্তিগত উদ্যোগের ফসল এই ভ্যাকসিন প্রাপ্তি।

বাংলাদেশে করোনা মহামারী তীব্র আকার ধারণ করেছে। সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। ভ্যাকসিন সংকটে বাংলাদেশ। সেই সময় আমেরিকা থেকে কোভ্যাক্সের আওতায় মডার্নার ৫৫ লাখ ও ফাইজারের এক লাখ ছয় হাজার ডোজ ভ্যাকসিন পেয়েছে বাংলাদেশ।

প্রফেসর ডা. মাসুদুল হাসান বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র থেকে ভ্যাকসিন পাওয়ার ক্ষেত্রে প্রধান চ্যালেঞ্জ ছিল বাইডেন প্রশাসনের ভ্যাকসিন ডিস্ট্রিবিউশন কমিটিতে ঢোকা। কাজটি খুবই কঠিন ছিল আমাদের জন্যে। কমিটিতে ঢুকতে না পারলে খুব বেশিকিছু করার সুযোগ ছিল না। সিনেটর ক্যাথরিনের ব্যক্তিগত কার্ডিওলজিস্ট ডা. হাফিজ। ক্যাথরিনের মাধ্যমে আমরা ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসের শরণাপন্ন হই। কমলা হ্যারিস ও ক্যাথরিনের আন্তরিক সহযোগিতায় কমিটিতে ঢোকাতে সক্ষম হই প্রফেসর ডা. হাফিজকে। তিনি ভ্যাকসিন পাবে এমন দেশের তালিকায় বাংলাদেশের নাম অন্তর্ভুক্ত করেন। প্রথম তালিকায় বাংলাদেশের নাম ছিল না। ১৮১টি দেশের মধ্যে মাত্র ১৮টি দেশের তালিকায় স্থান পায় বাংলাদেশও।’

ছবিতে (বাম দিক থেকে) কার্ডিওলজিস্ট প্রফেসর ডা. চৌধুরী হাফিজ আহসান, নেফ্রলজিস্ট প্রফেসর ডা. জিয়াউদ্দিন আহমেদ সাদেক, কার্ডিওলজিস্ট প্রফেসর ডা. মাসুদুল হাসান ও সাবেক সিনিয়র ইউএন অফিসিয়াল মাহমুদ উস শামস চৌধুরী।

কোভ্যাক্সের আওতায় যুক্তরাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশ অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন পাবে বলে জানা গিয়েছিল, এখন পাচ্ছে মডার্নার ভ্যাকসিন। বাংলাদেশের ভ্যাকসিন কেনার কথাও আলোচনায় ছিল— এ প্রসঙ্গে প্রফেসর ডা. মাসুদুল হাসান বলেন, ‘ভ্যাকসিন ডিস্ট্রিবিউশন টিমে ঢুকে আমরা কোভ্যাক্স থেকে ভ্যাকসিন পাওয়ার চেষ্টার পাশাপাশি ভ্যাকসিন কেনার আগ্রহ প্রকাশ করি। তখন বাইডেন প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয় ভ্যাকসিন কিনতে হবে না, কোভ্যাক্স থেকে প্রথম চালানে ২৫ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন বিনামূল্যে দেওয়া হবে। এরপর থেকে বাংলাদেশ পর্যায়ক্রমে ভ্যাকসিন পেতেই থাকবে।’

তিনি বলেন, ‘সেসময় বাংলাদেশকে ২৫ লাখ ডোজ মডার্না ও এক লাখ ছয় হাজার ডোজ ফাইজারের ভ্যাকসিন দেওয়া হয়। এখন দেওয়া হলো ৩০ লাখ ডোজ মডার্নার ভ্যাকসিন। যা ইতোমধ্যে বাংলাদেশে পৌঁছে গেছে।’

‘কোভ্যাক্সের আওতায় যুক্তরাষ্ট্র ভ্যাকসিন দেওয়ার যে ১৮টি দেশের তালিকা করেছে, এবার তার মধ্যে মাত্র দুটি দেশ ভ্যাকসিন পেয়েছে। বাংলাদেশ ৩০ লাখ ডোজ আর ইউক্রেন ১০ লাখ ডোজ’, বলেন প্রফেসর হাসান।

বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্র থেকে কোভ্যাক্সের কী পরিমাণ ভ্যাকসিন পাবে, এই প্রশ্নের উত্তরে প্রফেসর ডা. মাসুদুল হাসান বলেন, ‘ভ্যাকসিনের আবেদনে আমরা পরিমাণ উল্লেখ করিনি। যেহেতু আমরা ভ্যাকসিন ডিস্ট্রিবিউশন কমিটির সদস্য, সেহেতু যুক্তরাষ্ট্র কোভ্যাক্সের আওতায় যতবার ভ্যাকসিন দেবে, ততবারই বাংলাদেশ পাবে।’

বাংলাদেশ সরকারের সূত্র বলছে কোভ্যাক্স থেকে ভর্তুকি-মূল্যে বাংলাদেশ ভ্যাকসিন কিনছে, আর আপনারা বলছেন বাংলাদেশ বিনামূল্যে ভ্যাকসিন পাচ্ছে—এমন প্রশ্নে প্রফেসর ডা. মাসুদুল হাসান বলেন, ‘পররাষ্ট্রমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রে এলে সাংবাদিকরা ভ্যাকসিন পাওয়ার বিষয়টি জানতে চেয়েছিলেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী সেসময় বলেছিলেন, তিনি এ বিষয়ে কিছুই জানেন না। আমেরিকা ভ্যাকসিন দেওয়ার কথা বলে আমাদের মুলা দেখাচ্ছে। তখন আমরা বলেছিলাম, আমেরিকা আশ্বস্ত করেছে ভ্যাকসিন দেবে। তারপর জুনে আমরা প্রথম চালান এবং দ্বিতীয় চালান পেলাম জুলাইয়ে। ভ্যাকসিনের সব যোগাযোগ হয়েছে আমাদের সঙ্গে। যুক্তরাষ্ট্র থেকে কোভ্যাক্সের আওতায় বাংলাদেশ যে ভ্যাকসিন পাচ্ছে, তা সম্পূর্ণ বিনামূল্যে। ভর্তুকি-মূল্যে কেনার প্রসঙ্গ আসছে না এখানে। আমাদের কাছে সব তথ্য প্রমাণ আছে।’

তিনি বলেন, ‘ভ্যাকসিন ডিস্ট্রিবিউশন কমিটির সদস্য হিসেবে আমরা জানি, বাংলাদেশ আমেরিকা থেকে কোভ্যাক্সের ভ্যাকসিন পাচ্ছে বিনামূল্যে। পরিবহন খরচও কোভ্যাক্স ফান্ড থেকেই বহন করার কথা। এখন পরিবহন খরচ বাংলাদেশ বহন করছে কি না, তা আমাদের জানা নেই।’

বাংলাদেশের কোভিড-১৯ পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে প্রফেসর ডা. মাসুদুল হাসান বলেন, ‘আমরা স্বল্পমেয়াদি ও দীর্ঘমেয়াদি আরও কিছু উদ্যোগ নিয়েছি। ইতোমধ্যে বাংলাদেশে ৪০০ ভেন্টিলেটর পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছি। যুক্তরাষ্ট্রের ভ্যাকসিন ডিস্ট্রিবিউশন কমিটি এক হাজার ভেন্টিলেটর পেয়েছিল। যার ৪০০টি পেয়েছে বাংলাদেশ, আর ৬০০টি পেয়েছে ভারত। যার ১৫০টি বারডেমে পৌঁছে গেছে। বাকি ২৫০টি দিল্লি এয়ারপোর্টে আছে। বাংলাদেশ সেখান থেকে দু-একদিনের মধ্যে সংগ্রহ করবে। এক্ষেত্রে শুধু পরিবহন খরচ বাবদ প্রতিটির জন্য ১০০ ডলার করে খরচ হবে বাংলাদেশের।’

তিনি বলেন, ‘ভারত ও বাংলাদেশ ছাড়া তালিকার অন্য ১৬টি দেশ একটি ভেন্টিলেটরও পায়নি। বাংলাদেশের ৪০০ ভেন্টিলেটর পাওয়া সম্ভব হয়েছে কমিটিতে আমাদের উপস্থিতির কারণে। মেড ইন আমেরিকা ব্র্যান্ড নিউ এই ভেন্টিলেটরের প্রতিটির দাম ১৫ হাজার ডলার। যা আমরা পেয়েছি সম্পূর্ণ বিনামূল্যে।’

দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার অংশ হিসেবে বাংলাদেশে ভ্যাকসিন উৎপাদনের উদ্যোগের কথা বলছিলেন প্রফেসর হাসান। তিনি বলেন, ‘ভ্যাকসিন উৎপাদনের ক্ষেত্রে অনেক দূর এগিয়ে গেছি আমরা। ইউরোপীয় একটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে বাংলাদেশী একটি প্রতিষ্ঠান আগামী অক্টোবর নাগাদ দেশে ভ্যাকসিন উৎপাদন শুরু করতে পারবে বলে আশা করছি।’

তিনি বলেন, ‘কেউ আমাদের কোটি কোটি ডোজ ভ্যাকসিন বিনামূল্যে দেবে না, কিনতেও পারব না। ভ্যাকসিন উৎপাদন করতে হবে। যুদ্ধ করে যে দেশ স্বাধীন করেছি, সেই দেশের বিপদে অবশ্যই আমাদের ভূমিকা রাখতে হবে। মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সেই দায়বদ্ধতা থেকে আমাদের এই উদ্যোগ।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •