• ১৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ১১ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

বেকারদের উদ্দেশ্যে চাকরির তুলনায় ব্যবসায় মনোযোগী হওয়ার আহবান

bilatbanglanews.com
প্রকাশিত জুলাই ১, ২০২১
বেকারদের উদ্দেশ্যে চাকরির তুলনায় ব্যবসায় মনোযোগী হওয়ার আহবান

বাংলাদেশের শিক্ষিত তরুণদের অনুরোধ করি—পরিকল্পিতভাবে ব্যবসা করুন। ব্যবসায় অনেক বরকত, অনেক।

কোনো চাকুরি না পেয়ে ব্যবসা নয়; সচেতনভাবেই ব্যবসা করুন৷ চাকুরি না পেয়ে হতাশার চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছে ব্যবসা শুরু করলে সফল হতে পারা সত্যিই কঠিন। ৩৫/৪০ বছরে গিয়ে ব্যবসা নয়, ২৫ বছর থেকেই ব্যবসা শুরু করুন ভাইসব।

আমি চাকুরির বিরোধী নই। দেশ পরিচালনায় অবশ্যই চাকুরে জনশক্তি দরকার আছে; তাদের ছাড়া রাষ্ট্রযন্ত্র বিকল হয়ে পড়বে। তবে, বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশে বেকারত্ব দূর করতে হলে নতুন নতুন বিজনেস ইনিশিয়েটিভ নিতে হবে। কেবলই সরকারকে গালাগালি করে লাভ নাই। সরকার কীভাবে জব ক্রিয়েট করবে? আপনাকে আগামীকাল সরকারের দায়িত্ব দিলে আপনি কীভাবে ২/৩ কোটি জব ক্রিয়েট করবেন?

শিক্ষিত তরুণরা ব্যবসাতে আসুন। যাদের বিপুল হিম্মত আর ডেস্পারেট সাহস আছে, তারা ব্যবসাতে আসুন। বহু ব্যবসা আপনাকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত।

প্রবাসী যারা আছেন, দেশে আসার আগেই ব্যবসায়িক উদ্যোগ কনফার্ম করুন। নিজ নিজ এলাকায় অনেক ব্যবসা আছে, একটু খেয়াল করুন, একটু চোখ মেলে তাকান। বড়ো বড়ো স্বপ্নের প্রাসাদ না গড়ে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র চিন্তা করুন, একদিন তা মহিরুহে পরিণত হবে ইনশাআল্লাহ।

আপনি সফল হলে অনেক তরুণের পরিবার নিরাপদ হবে। বিশেষত যারা সমাজে প্রভাবক হয়ে উঠতে চান, তারা ব্যবসাতে আসুন। যারা বৈপ্লবিক দৃষ্টিভঙ্গি লালন করেন, ইমপ্যাক্টফুল কিছু করতে চান, তারা ব্যবসায় আসুন।

একটি দেশ খুব দ্রুত অর্থনৈতিক মুক্তির দিকে যায়, যখন সে দেশের তরুণরা সৃজনশীল ইনিশিয়েটিভ নিতে থাকে, নতুন নতুন সম্ভাবনা আর স্কোপ তৈরি করে৷ এটা বিপুল হিম্মতের ব্যাপার!

আর এক্সিস্টিং কোনো স্ট্রাকচারে নিজেকে চাকুরে হিসেবে ইমপ্লোয়েড করা অপেক্ষাকৃত সেইভ জার্নি, কিন্তু তাতে অনেক সম্ভাবনার অপমৃত্যু হয়। আমি অনেক প্রতিভাবান ও সৃজনশীল তরুণকে দেখেছি, অনিচ্ছা স্বত্ত্বেও অপছন্দের ট্র‍্যাডিশনাল চাকুরি করতে। চাকুরি একটি পরিবারকে নিরাপদ করতে পারে আর ব্যবসা একাধিক পরিবার/জনপদকে নিরাপদ করতে পারে।

একদল মেধাবী ও সাহসী তরুণরা ব্যবসায়িক উদ্যোগে আসুক, দেশটা অনেক এগিয়ে যাবে ইনশাআল্লাহ। অনেক তরুণের হতাশা কেটে যাবে, তারা স্বপ্নের ডানা মেলতে পারবে৷

অনেক তরুণ আসে। কেবল চাকুরি খোঁজে। যেকোনো মুল্যে একটা চাকুরি চায়। হায়! তারা যদি তাদের নিজেদের চিনতো!

খুব অবাক হয়ে খেয়াল করি, তরুণরা ব্যবসার আলাপ করলেই হাহুতাশ করে বলে—টাকা নাই ভাই, কেমনে ব্যবসা করি?

ভাইগো, ব্যবসাতে টাকা লাগে সত্য; তারও আগে লাগে মগজ আর হিম্মত। মগজ ব্যবহার করলে টাকা ছাড়াও ব্যবসা করা যায়, বৈধভাবেই যায়।

খুব ইচ্ছে করে, একটা বিজনেস কনসাল্টি ফার্ম ওপেন করে আমাদের হতাশাগ্রস্থ তরুণদের দেশের সফল ব্যবসায়ীদের মুখোমুখি করতে। তারা ব্যবসায়িক গল্প অন্তত শুনুক।

আমাদের তরুণদের নিয়ে ভীষণ এক খারাপ লাগা কাজ করে৷ কত মেধাবী তরুণ ধুকে ধুকে নিজেকে শেষ করছে; অথচ সে অনেক পোটেনশিয়াল এক সৈনিক।

লেখকঃ নুর মুহাম্মাদ, প্রকাশক: গার্ডিয়ান প্রকাশনী।