• ২০শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ১৪ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

এমপি মানিক ১৮কোটি টাকা ব্যয়ে কৈতক ট্রমা সেন্টার নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেছেন

bilatbanglanews.com
প্রকাশিত নভেম্বর ২৩, ২০২০
এমপি মানিক ১৮কোটি টাকা ব্যয়ে কৈতক ট্রমা সেন্টার নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেছেন

লতিফুর রহমান রাজু সুনামগঞ্জ: সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক উপজেলার সিলেট সুনামগঞ্জ সড়কের কৈতক হাসপাতালে ট্রমা সেন্টার নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন ছাতক দোয়ারা বাজার আসনের সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক। আজ সোমবার সকাল ১১.টায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠান পরবর্তী এক সভায় সভাপতিত্ব করেন সুনামগঞ্জ জেলার ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা আশরাফুল হক । উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আফজাল হোসেনের পরিচালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন মুহিবুর রহমান মানিক এমপি বিশেষ অতিথি ছিলেন সিলেট বিভাগের স্বাস্থ্য বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আবুল খয়রাত মোঃ বদরুল ইসলাম, স্বাস্থ্য প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা কর্ম কর্তা ডাঃ রাজীব চক্রবর্তী, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক সৈয়দ আহমদ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আবু সাদাত লাহিন,জাউয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ মুরাদ হোসেন, ভাতগাও ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান গিয়াস মিয়া চরমহললা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান কদর মিয়া গোবিন্দ ছৈদের গাও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আখলাকুর রহমান, দক্ষিণ খুরমা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল মছববির ,জাউয়া বাজার ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম, দোহালীয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কাজী আনোয়ার হোসেন আনু, উত্তর খুরমা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিললাল হোসেন ভাতগাও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাস্টার আওলাদ হোসেন প্রমুখ।
প্রধান অতিথি মুহিবুর রহমান মানিক এমপি বলেন বাংলাদেশের মাত্র কয়েকটি জায়গায় এই ট্রমা সেন্টার আছে। সিলেট বিভাগের মধ্যে আজ কৈতকে এটি নির্মাণ হতে যাচ্ছে। সিলেট সুনামগঞ্জ সড়কের কৈতক হাসপাতাল চারটি উপজেলার টার্নিং পয়েন্ট হিসেবে এই জায়গায় নির্মান করা হচ্ছে। সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হলে প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে। পরবর্তীতে তাকে পঙ্গু হাসপাতাল সহ বিভিন্ন স্থানে পাঠানো হবে। তাই আমি প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা, স্বাস্থ্য মন্ত্রী সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই। আপাতত ১৮কোটি টাকা ব্যয়ে ২০ শয্যা বিশিষ্ট ট্রমা সেন্টারে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে। পরবর্তীতে তা আরো বেশি শয্যায় উন্নীত করার পরিকল্পনা রয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •