• ১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ১০ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

কারামুক্ত হলেন হেফাজত নেতা মাওলানা মামুনুল হক

bilatbanglanews.com
প্রকাশিত মে ২, ২০২৪
কারামুক্ত হলেন হেফাজত নেতা মাওলানা মামুনুল হক

বিবিএন ডেস্ক:অবশেষে মুক্তি পেলেন হেফাজত নেতা মাওলানা মামুনুল হক। তিনি ঈদুল ফিতরের আগে মুক্তি পাবেন এমন একটা গুঞ্জন ছিল কিন্তু মুক্তি পাননি।

আবশেষে আজ বৃহস্পতিবার রাত ১০ টার পর গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগার থেকে তিনি কারা মুক্ত হন। এ সময় কারাগারের প্রধান ফটকের সামনে হাজার হাজার নেতাকর্মী ভিড় করে। তিনি কারাগার থেকে বেরিয়ে আসলে স্লোগানে স্লোগানে উত্তাল হয়ে উঠে পুরো এলাকা।


জানা যায়, হেফাজতে ইসলামের বিলুপ্ত কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম-মহাসচিব এবং ঢাকা মহানগরীর সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মামুনুল হক। তার বিরুদ্ধে প্রায় ৪২টি মামলা ছিল। সর্বশেষ গত রোববার খুলনা ও চট্টগ্রামের দুই মামলা তিনি জামিন পান।

আজ বৃহস্পতিবার (২ মে) রাত সাড়ে ১০টার পর কাশিমপুর-৪ হাই সিকিউরিটি কারাগার থেকে তিনি জামিনে মুক্তি লাভ করেন। এর আগে গত ১১ মার্চ মামুনুল হকের মুক্তির বিষয়ে আলোচনা করতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সঙ্গে বৈঠক করেন হেফাজত নেতারা। ধর্মমন্ত্রী ফরিদুল হক খানসহ সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা বৈঠকে অংশ নেন।


বৈঠক শেষে গণমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সংগঠনটির মহাসচিব মাওলানা সাজিদুর রহমান দাবি করেন, ‘মামুনুল হকের মুক্তির বিষয়ে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।’

প্রসঙ্গত, ২০২১ খ্রিষ্টাব্দের ৩ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে রয়েল রিসোর্টে এক নারীর সঙ্গে হেফাজত নেতা মামুনুল হককে অবরুদ্ধ করেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে। খবর পেয়ে হেফাজতের স্থানীয় নেতাকর্মীরা রিসোর্টে গিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করেন এবং তাকে ছিনিয়ে নিয়ে যান। ঘটনার পর ঢাকার মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসায় অবস্থান করছিলেন মামুনুল হক।

১৫ দিন পর ওই মাদ্রাসা থেকে মোবাইল ও মানিব্যাগ চুরির একটি মামলায় মামুনুল হককে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে ৩০ এপ্রিল সোনারগাঁ থানায় তার বিরুদ্ধে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের মামলা করেন তার সঙ্গে রিসোর্টে অবরুদ্ধ হওয়া নারী। যদিও ওই নারীকে তার দ্বিতীয় স্ত্রী দাবি করে আসছেন মামুনুল হক।

এরপর ওই মাসেই দেশের বিভিন্ন স্থানে তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহসহ অর্ধশতাধিক মামলা হয়েছে। পরে সেসব মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখিয়েছে পুলিশ। গ্রেফতারের পর থেকে এসব মামলায় তিনি কারাগারে আছেন। অর্থাৎ ২০২১ খ্রিষ্টাব্দের ১৮ গ্রেফতার হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত কারাগারেই রয়েছেন মামুনুল হক।(সূত্র:দৈনিক যায়যায়দিন)