• ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ৯ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জের থলেরবন গ্রামে দু”পক্ষের সংঘর্ষে ২জন নিহত,আহত ১৫ :আটক ৬জন

bilatbanglanews.com
প্রকাশিত এপ্রিল ২, ২০২৪
সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জের থলেরবন গ্রামে দু”পক্ষের সংঘর্ষে ২জন নিহত,আহত ১৫ :আটক ৬জন

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিসুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জ উপজেলার শিমুলবাক ইউনিয়নের থলেরবন গ্রামে আশিক মিয়ার বাড়ীর সামনে শের আলীর একটি পালিত ঘোড়া বেঁধে রাখলে ঘোড়ার লাথিতে আশিক মিয়ার ছেলে ফরিদ আঘাতপ্রাপ্ত হয়। এতে আশিক আলীর ভাই সাহার আলী, শেরআলীকে আশিক আলীর বাড়ীর সামনে ঘোড়া বেঁধে রাখার কারন জিজ্ঞাসা করলে শেরআলীর লোকজন সাহার আলীকে মারধর করে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়,ঘটনার জেরে সোমবার রাত আনুমানিক সাড়ে ১২টায় উভয় পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রসহ নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে এবং একপক্ষ আরেক পক্ষের বাড়ীঘরে হামলা,ভাংচুর ও লুটপাঠ চালায়। এ সময় সংঘর্ষে উভয়পক্ষের ১৫জন আহত হন।

খবর পেয়ে শান্তিগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে এবং এ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে উভয়পক্ষের ৬জনকে আটক করে।

সংঘর্ষের ঘটনায় আশিক আলী পক্ষের থলেরবন গ্রামের মৃত রহিম আলীর পূত্র নুর মোহাম্মদ (২২) লাঠির আঘাতে মাথায় গুরুতর আঘাতপ্রাপ্ত হন এবং আশিক আলী পক্ষে মৃত নৈমুল্লাহর পূত্র আব্দুল আওয়াল (৫৫),ডান চোখের উপরে গুরুতর আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে গভীর রাতেই তাদেরকে চিকিৎসার জন্য জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার আহত নুর মোহাম্মদকে প্রাথমিক চিকিৎসাসেবা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করলে নুর মোহাম্মদ সিলেট যাওয়ার পথে মঙ্গলবার ভোরে রাস্তাায় মারা যান এবং অপরপক্ষের আহত আব্দুল আওয়াল সুনামগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান । এতে উভয়পক্ষের দুইজন নিহত হন। শান্তিগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে অভিযান পরিচালনা করে আশিক আলী পক্ষের ২জন এবং শেরআলী পক্ষের ৪ জনকে আটক করে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে শান্তিগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) কাজি মোক্তাদির হোসেন চৌধুরী সংঘর্ষে ২জন নিহত এবং উভয়পক্ষের ৬জরকে আটকের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।