• ১৭ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ৮ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

“বার্মিংহামে ২৮ মার্চ উদযাপন পরিষদের সংবাদ সম্মেলন”

bilatbanglanews.com
প্রকাশিত মার্চ ৫, ২০২৪
“বার্মিংহামে ২৮ মার্চ উদযাপন পরিষদের সংবাদ সম্মেলন”

মুক্তিযুদ্ধে প্রবাসী সংগঠকদের স্বীকৃতি দাবি

এনামুল হক, বার্মিংহাম থেকে : যুক্তরাজ‍্যের বার্মিংহামের স্মলহিথ পার্কে দেশের বাইরে সর্বপ্রথম ১৯৭১ সালের ২৮শে মার্চ বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। কিন্তু এখন পযর্ন্ত বাংলাদেশ সরকারের কাছ থেকে এরা আনুষ্ঠানিক কোন স্বীকৃতি লিভ করেনি। এমনকি প্রবাসে মহান মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে যারা জনমত গঠন করেছিলেন, অর্থ সংগ্রহ করেছিলেন, মিছিল করে আন্তর্জাতিক ভাবে দেশের স্বাধীনতার পক্ষে ভূমিকা পালন করেছিলেন সেই সব মুক্তিযুদ্ধের সংগঠকদেরও মিলেনি কোন রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি।

গতকাল যুক্তরিজ‍্যের বার্মিংহামের একটি কনফারেন্স হলে ২৮ মার্চ উদযাপন পরিষদের উদ‍্যৌগে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সভাপতি তজমুল টনি হক এর পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মসুদ আহমদ।

সংগঠধের সহ সভাপতি বশির মিয়া কাদিরের সভাপতিত্বে লিখিত বক্তব্যে মসুদ আহমদ আরো বলেন, ২৮ মার্চ উদযাপন পরিষদ ২০১০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। মুক্তিযুদ্ধে বার্মিংহামে বাংলাদেশীদের অবদান ও ভূমিকা তুলে ধরা এবং স্মৃতি রক্ষায় এই সংগঠন প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। কয়েক দফায় স্মারকলিপি প্রদান, প্রাতিষ্ঠানিক যোগাযোগ এবং অনেক প্রচেষ্টার পরও কোন স্বীকৃতি না পাওয়ার কষ্ট নিয়ে অনেকেই মৃত্যু বরণ করেছেন।

লিখিত বক্তব্য তিনি বলেন, বর্তমানে বঙ্গবন্ধুর কণ‍্যার নেতৃত্বে সরকার দেশ পরিচালনা করছেন। তাই এই সরকারের মাধ‍্যমেই প্রবাসীদের অবদানের স্বীকৃতি আদায় করা সম্ভব। তাই বতর্মান সরকারের দৃষ্টি আকর্ষনে সর্বাত্বক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

তিনি সম্প্রতি একটি কতিপয় গোষ্টি কর্তৃক ২৮ মার্চ উদযাপন পরিষদকে অকার্যকর সংগঠন আখ‍্যায়িত করার অপপ্রয়াসের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, যাদের নূন্যতম কোন অবদান নেই একটি পাউন্ড ও দান করেননি এমনকি কখনও নামও শুনা যায়নি তারাও এখন নিজেদের সংগঠক পরিচয় দিচ্ছেন। সংবাদ সম্মেলনে এই অপতৎপরতা বন্ধের আহবান জানান।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সহ সভাপতি সৈয়দ লুৎফুর রহমান,সাইফুল আলম, এনামুল হক খান নেপা, জুনেদুর রহমান জুনেদ, ইর্শাদ আলী, কাজী জাওয়াদ, রহমত আলী, এসএম তাজুল ইসলাম, আজাদ মিয়া, সোহেল আহমদ চৌধুরী।

এসময় বার্মিংহামে বাংলা মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিক এবং বাংলা প্রেসক্লাব বার্মিংহাম মিডল‍্যন্ডস এর সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।