• ৬ই ডিসেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ , ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ , ২২শে জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

তাহিরপুর সীমান্তে চোরা কারবারী দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ৫ জন

bilatbanglanews.com
প্রকাশিত অক্টোবর ১০, ২০২৩
তাহিরপুর সীমান্তে চোরা কারবারী দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ৫ জন
লতিফুর রহমান রাজু, সুনামগঞ্জ: সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর সীমান্ত এলাকার চোরাচালানের সাথে জড়িতরা বেপরোপয়া হয়ে উঠেছে। দিনে ও রাতে সীমান্তের ওপার থেকে বিভিন্ন চোরাই পণ্য অনায়াসেই আসছে। অভিযোগ রয়েছে সীমান্তের দায়িত্ব রতদের ম্যানেজ করেই এসব অবৈধ কারবার করছে। আবার চোরাকারবারী গণ ভাগ ভাটোয়ারা নিয়ে নিজেদের মধ্যে হর হামেশাই ছোট বড় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে।

গত ৮ অক্টোবর  গভীর রাতে  সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর উপজেলার চারাগাঁও এবং বীরেন্দ্রনগর সীমান্তের লামাকাটা ও জঙ্গল বাড়ি এলাকায়  চোরাচালান ও চাঁদাবাজীজী সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে দু‘পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় ৫জন আহত হয়েছে।

 সংঘর্ষে আহতদের মধ্যে গুরুতর অবস্থায় হ্নদয় মিয়া(২৫) ও হলুদ মিয়া(২২)’কে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে আজ সোমবার (৯ অক্টোবর) সকালে জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যান্য আহতদের স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

তাহিরপুর থানার ওসি কাজী নাজিম উদ্দিন বলেন, খবর পেয়ে রাতেই ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ থামিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। তিনি আরও বলেন, থানা-পুলিশের কোন সোর্স নাই। আমি এই থানায় আসার পর সীমান্ত চোরাচালান ও চাঁদাবাজি নিয়ে লোকজনের কাছ থেকে অনেক কিছু জানতে পেরেছি। এব্যাপারে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে। এবং চোরাচালান প্রতিরোধ পুলিশ সবসময় তৎপর রয়েছে।

এ সংঘর্ষের ঘটনায় বীরেন্দ্রনগর ও চারাগাঁও সীমান্তের লামাকাটা-জঙ্গলবাড়ি সীমান্ত এলাকায় চোরাচালানকারী ও চাঁদাবাজ সিন্ডিকেট চক্রের সদস্যদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।  যেকোনো সময় ওই দুই গ্রুপের লোকজন আবারও সংঘর্ষের জড়ানোর আশংকা করছেন স্থানীয় এলাকাবাসী।

এলাকাবাসী জানান  ভারতীয় চোরাই  কয়লা ও মাদকসহ পাথর, নাসিরউদ্দিন বিড়ি, গাছ, কসমেটিস, চিনি, সুপারীসহ বিভিন্ন পন্য সামগ্রী পাচারের স্বর্গরাজ্য  তাহিরপুর উপজেলার বীরেন্দ্রনগর ও চারাগাঁও সীমান্তের লামাকাটা, জঙ্গলবাড়ি, কলাগাঁও, এলসি পয়েন্ট, বাঁশতলা, বালিয়াঘাট সীমান্তের লালঘাট, লাকমা, টেকেরঘাট সীমান্তের চুনাপাথর খনি প্রকল্প, বরুঙ্গাছড়া, রজনীলাইন, চাঁনপুর সীমান্তের নয়াছড়া, গারোঘাট, রাজাই, কড়ইগড়া, বারেকটিলা ও লাউড়গড় সীমান্তের যাদুকাটা নদী, সাহিদবাদ, পুরান লাউড় সীমান্ত। চোরাকারবারিরা এইসব সীমান্তের বিভিন্ন পয়েন্ট চোরাচালানের নিরাপদ রোড হিসেবে ব্যবহার করে প্রতিদিন ভারতীয় চোরাই কয়লা ও মদ- ইয়াবাসহ প্রায় কোটি টাকার ভারতীয় পণ্য রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে ভারত থেকে পাচাঁর করছে।

বেশ কয়েকজন স্থানীয় বৈধ কয়লার ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসী আরও জানান, প্রতিদিনের মতো গতকাল রবিবার (৮ অক্টোবর) রাত ১১টার পর থেকে চোরাকারবারি সিন্ডিকেট চক্রটি রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে উপজেলার বীরেন্দ্রনগর ও চারাগাঁও সীমান্তের লামাকাটা, জঙ্গলবাড়ি, কলাগাঁও, এলসি পয়েন্ট, বাঁশতলা, বালিয়াঘাট সীমান্তের লালঘাট, লাকমা, টেকেরঘাট সীমান্তের চুনাপাথর খনি প্রকল্প, বরুঙ্গাছড়া, রজনীলাইন, চাঁনপুর সীমান্তের নয়াছড়া, গারোঘাট, রাজাই, কড়ইগড়া, বারেকটিলা ও লাউড়গড় সীমান্তের যাদুকাটা নদী, সাহিদবাদ, পুরান লাউড় সীমান্ত দিয়ে ভারত থেকে চোরাই কয়লা,মাদকসহ বিভিন্ন পাচাঁর শুরু করে।

পরে রাত সাড়ে ১১ টার সময় সীমান্তের বিজিবি, পুলিশ ও সাংবাদিকের সোর্স পরিচয়ধারী একাধিক মামলার আসামী চাঁদাবাজ সিন্ডিকেট চক্রের সদস্য ইয়াবা কালাম মিয়া, রতন মহলদার, কামরুল মিয়া, মোক্তার মহলদার, নেকবর আলী, জিয়াউর রহমান জিয়া, মনির মিয়া, লেংড়া জামাল, রফ মিয়া, আইনাল মিয়া, সাইফুল মিয়া, রিপন মিয়া, হযরত আলী, আনোয়ার হোসেন বাবলু, রুবেল মিয়া, খোকন মিয়া, রুস্তম মিয়া, মনতাজ মিয়া, আক্কাছ মিয়া, আবু বক্কর, রফিকুল, বায়েজিদ মিয়াগংরা
চোরাচালানের মাধ্যমে ভারত থেকে আনা প্রতি বস্তা কয়লার জন্য ৩৫০ টাকা করে চাঁদা দাবি করে।
এমতাবস্থায় রাত অনুমান সাড়ে ১১টার সময় কলাগাঁও মাইজহাটি-লামাকাটা এলাকায় সোর্স , রৌফ মিয়া  ও চোরাই কয়লার ব্যবসায়ীদের মধ্যে চাঁদা উত্তোলন নিয়ে প্রথমে কথা কাটাকাটি হয়। ওই সময় রফ মিয়ার পক্ষে শামীম মিয়া ও সৌরভ মিয়াগং দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র দিয়ে চোরাই কয়লা ব্যবসায়ী হ্নদয় মিয়া (২৫) ও হলুদ মিয়া (২২)কে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। তাদের রক্ষা করতে এসে আরো ৩ জন আহত হয়। এঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং রাতেই গুরুতর আহত ২জনকে তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়। কিন্তু আহতদের শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখে তাদেরকে সুনামগঞ্জ পাঠানো হয়।
এব্যাপারে আহত হ্নদয়ের বাবা সিদ্দিক মিয়া বলেন- সবাইকে আমি চিনতে পারিনি। সোর্স রৌফ মিয়া, শামীম ও সৌরভকে চিনতে পেরেছি। তাদের সাথে আরো অনেকেই ছিল। তারা সাংবাদিক, পুলিশ ও বিজিবির নামে চাঁদার জন্য ওরা আমার ছেলের ওপর হামলা করেছে, বতর্মানে তার অবস্থা খুবই খারাপ। চোরাচালান মামলার আসামী সোর্স রৌফ মিয়া বলেন- আপনাদের বড় সাংবাদিক ভাই ও থানাসহ সবার টাকা তুলার দায়িত্ব এতদিন পালন করেছি। এখন আস্তে আস্তে সব বাদ দিয়ে দিতেছি। তবে সংঘর্ষের সময় আমি ছিলাম না। খবর পেয়ে পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গেছি। এলাকার মানুষ আমার বিরুদ্ধে নানান কিছু বলতেই পারে।কয়লা ও চুনাপাথর আমদানী কারক রাশিদ মেম্মার ও আবুল বাশার নয়ন বলেন- চোরাচালান ও চাঁদাবাজি নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনা এখানে নতুন না। এইসব চোরাচালান ও চাঁদাবাজি সিন্ডিকেটের প্রধান এলাকার বড় সাংবাদিক খ্যাত একজন। তার ব্যাপারেও প্রশাসনকে জানানোর পরও কেউ কোন পদক্ষেপ নেয়না।চারাগাঁও বিজিবি ক্যাম্প কমান্ডার তাজুল ইসলাম বলেন- কারণ আমাদের কোন সোর্স নাই। চোরারা চুরি করে এসব করে। তবে সংঘর্ষের ঘটনা আমার এলাকায় হয়নি। এ সংঘর্ষ বীরেন্দ্র নগর এলাকায় হয়েছে। বিজিবির সোর্স পরিচয়ধারী চোরাকারবারী আইনাল মিয়া, সাইফুল মিয়া ও রিপন মিয়াকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

বিজিবির বীরেন্দ্রনগর ক্যাম্প কমান্ডার দিলীপ কুমার সরকার জানান চোরাচালান চক্রের সদস্য গণ খুব চালাক। মোবাইল থাকায় আর ও বেশী আমাদের টহল টীমের ওপর নজরদারী করে। একদিকে টীম গেলে আরেকদিকে এসব করে। আমাদের সামনে পড়লে আমরা ধরি।