• ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ , ৩০শে জিলকদ, ১৪৪৩ হিজরি

করোনার ট্যাবলেট আসছে ব্রিটেনে

bilatbanglanews.com
প্রকাশিত নভেম্বর ৫, ২০২১
করোনার ট্যাবলেট আসছে ব্রিটেনে

বিবিএন ডেস্ক:  ব্রিটেনে পাওয়া যাবে কোভিডের ট্যাবলেট। ‘মলনুপিরাভিয়ার’ জেনেটিক নাম হলেও ‘ল্যাগেভরিও’ নামের এই ট্যাবলেট গত বৃহস্পতিবার ব্রিটেন ছাড়পত্র পেলো। আর এটি একেবারেই কোভিডের চিকিৎসার জন্য তৈরি প্রথম ট্যাবলেট হবে বলে দাবি করেছে বিজ্ঞানীরা। তার মানে বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে এই ওষুধকেই স্বীকৃতি দিল ব্রিটেন। যা আগামী মাস থেকে পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এর মানে কোভিড প্রতিরোধে এখন থেকে আপনাকে আর টিকা দিতে হবে না ট্যাবলেট খেলেই হবে।

বলা হচ্ছে উপসর্গ দেখা দেওয়ার পাঁচ দিনের মধ্যে ওষুধটি খাওয়া শুরু করতে হবে। দৈনিক  দু’টি ডোজ করে এই ট্যাবলেট খেতে হবে। তবে এর বিস্তারিত পরবর্তীতে জানিয়ে দেবে স্বাস্থ্য বিভাগ।

ব্রিটেনের স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে জানানো হয়েছে, কোভিডের চিকিৎসার ক্ষেত্রে এটিই প্রথম স্বীকৃত অ্যান্টিভাইরাল, যেটি ইঞ্জেকশনের বদলে রোগীকে খাওয়ানো হবে। ওষুধটি তৈরি করেছে মার্ক এবং রিজব্যাক বায়োথেরাপিউটিক্স।

বলা হচ্ছে , ওষুধটি নিরাপদ এবং কার্যকর।  মৃদু থেকে মাঝারি উপসর্গের যে সমস্ত কোভিড রোগীর অবস্থা গুরুতর হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে, তাঁদের হাসপাতালে ভর্তি হওয়া এবং মৃত্যুর ঝুঁকি কমিয়ে দেবে এই ট্যাবলেট। একই সাথে বয়স্ক, হৃদরোগ বা ডায়াবিটিসের রোগীদের ক্ষেত্রে ওষুধটি নিরাপদ।

বিষয়টি নিয়ে ব্রিটিশ স্বাস্থ্য সেক্রেটারী সাজিদ জাভিদ বলেছেন, এটি ব্রিটেনের জন্য একটি ঐতিহাসিক দিন। রোগীরা নিজেদের বাড়িতেই ওষুধটি নিতে পারবেন। যাঁদের ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি অথচ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম, তাঁরা শীঘ্রই এই মোড়-ঘোরানো চিকিৎসার সুযোগ পাবেন। তবে কবে থেকে এই ওষুধ পাওয়া যাবে আর কিভাবে খেতে হবে তার বিস্তারিত পরে জানানো হবে।

অন্যদিকে বিজ্ঞানীরা বরাবরই বলেছেন, অতিমারি চলে গেলেও কোভিড থাকবে। ফলে রোগটির চিকিৎসার জন্য একটি স্থায়ী ওষুধ প্রয়োজন। মূলত ফ্লু-র জন্য তৈরি করা মলনুপিরাভিয়ার পুরোদস্তুর কোভিডের চিকিৎসাতেই কাজে লাগবে বলে ব্রিটিশ স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মত।

স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে বলা হয়েছে, ব্রিটেন আগামী মাসের মধ্যে ৪ লাখ ৮০ হাজার মলনুপিরাভিয়ারের অর্ডার  দিয়ে রেখেছে। আমেরিকার বিশেষজ্ঞেরা চলতি মাসেই এই ওষুধটি ব্যবহারের সম্ভাবনা নিয়ে বৈঠকে বসবেন।(রানার মিডিয়া)