• ১৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ১১ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

রাসূল (সা.)-এর প্রশংসা শুনে অখুশি হওয়া মুনাফিকির আলামত-অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল মুনঈম মঞ্জলালী

bilatbanglanews.com
প্রকাশিত অক্টোবর ২৪, ২০২১
রাসূল (সা.)-এর প্রশংসা শুনে অখুশি হওয়া মুনাফিকির আলামত-অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল মুনঈম মঞ্জলালী

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশ আনজুমানে আল ইসলাহ কেন্দ্রীয় পরিষদের সহ সভাপতি অধ্যক্ষ মাওলানা আবদুল মুনঈম মঞ্জলালী বলেন, মহান আল্লাহ পবিত্র কুরআনে রাসূল (সা.)-এর উপর দুরূদ পাঠ করার নির্দেশনা দিয়েছেন। তিনি নিজে তাঁর হাবিব (সা.)-এর উপর দুরূদ পাঠ করেন এবং ফেরেশতারাও রাসূল (সা.)-এর উপর দুরূদ পাঠ করেন। এর থেকে এটাই প্রমানিত হয় যে, রাসূল (সা.)-এর উপর দুরূদ পাঠ করা, প্রশংসা গাওয়া বা এ ধরনের মাহফিলের আয়োজন করা অত্যন্ত মুবারক কাজ। অথচ আমাদের আশেপাশে এমন কিছু নরাধম মানুষ আছেন, যাদের কাছে এ ধরনের মাহফিল আয়োজন পছন্দনীয় নয়, যাদের কাছে রাসূল (সা.)-এর প্রশংসা ভালো লাগে না। এমন মনমানসিকতা যাদের রয়েছে তারা নামধারী মুসলমান কিন্তু মুনাফিক। পবিত্র ঈদে মীলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে রোববার (২৪ অক্টোবর) সকাল ১০ টায় সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে আবদুস সামাদ আজাদ অডিটোরিয়ামে বাংলাদেশ আনজুমানে আল ইসলাহ ও তালামীযে ইসলামিয়া পবিত্র ঈদে মীলাদুন্নবী (সা.) বাস্তবায়ন পরিষদ জগন্নাথপুরের উদ্যোগে আয়োজিত মুবারক র‍্যালি পূর্ববর্তী আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

বাস্তবায়ন পরিষদের আহবায়ক মাওলানা মো. নুরুল হক এর সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব জাকির আহমদ ও যুগ্ম সদস্য সচিব ফারুক আহমদের যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠানে উদ্বোধকের বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আনজুমানে আল ইসলাহ’র উপদেষ্ঠা অধ্যক্ষ মাওলানা ছমির উদ্দিন, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আনজুমানে আল ইসলাহ’র কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যক্ষ মাওলানা মঈনুল ইসলাম পারভেজ। প্রধান বক্তার বক্তব্যে তালামীযে ইসলামিয়ার কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মনজুরুল করিম মহসিন বলেন, মানুষের বানানো সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির শিক্ষা নয় বরং বিশ্বনবী (সা.)-আমাদের কাছে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অনন্য নজিরসমূহ রেখে গেছেন তা থেকে আমাদের শিক্ষা নিতে হবে। মক্কা থেকে মদিনায় হিজরতের পরে বিভিন্ন ধর্মের মানুষদেরকে নিয়ে মহানবী (সা.) একটি সুন্দর সমাজ বিনির্মাণ করেন, যা সভ্যতার ইতিহাসে অতুলনীয় একটি নজীর। এসময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সুনামগঞ্জ জেলা আল ইসলাহ’র সহ সভাপতি অধ্যক্ষ মাওলানা তাজুল ইসলাম আলফাজ, তালামীযে ইসলামিয়া সুনামগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি আবদুল গণি সোহাগ, ইয়াকুবিয়া হিফজুল কুরআন বোর্ড এর সভাপতি হাফিজ নূরুল হক।

বাস্তবায়ন পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক মাওলানা নূর আহমদের স্বাগত বক্তব্যের মাধ্যমে শুরু হওয়া অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সুনামগঞ্জ জেলা (সার্কেল) এসপি সুভাশিষ ধর, জগন্নাথপুর থানার ওসি ইখতিয়ার উদ্দিন, জগন্নাথপুর উপজেলা আল ইসলাহ’র সভাপতি মাওলানা আজমল হোসাইন জামী, সাবেক সভাপতি মুফতি গিয়াস উদ্দিন, সুনামগঞ্জ জেলা আল ইসলাহ’র তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক হাফেজ শমসু মিয়া সুজল, সিলেট মহানগর তালামীযের সাবেক সভাপতি মাওলানা এনাম উদ্দিন, তালামীযে ইসলামিয়ার সাবেক কেন্দ্রীয় সদস্য মাওলানা মাহমুদুল হাসান, সুনামগঞ্জ জেলা তালামীযের সাবেক সভাপতি মাওলানা শিহাব উদ্দিন, বর্তমান প্রচার সম্পাদক মুহাম্মদ শাহ আলম, সহ-প্রচার সম্পাদক সালেহ আহমদ ছালিক, সহ তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মাছুম, জগন্নাথপুর উপজেলা আল ইসলাহ’র সহ-সভাপতি মাওলানা আবু আইয়ুব আনসারী, সহ-সাধারণ সম্পাদক মাওলানা নিজাম উদ্দিন জালালি, ইয়াকুবিয়া হিফজুল কোরআন বোর্ড জগন্নাথপুর’র সাধারণ সম্পাদক হাফেজ ইয়াহইয়া, হলিয়ারপাড়া ফাযিল মাদরাসার প্রভাষক মাওলানা সাইফুল ইসলাম, নজিপুর হাফিজিয়া মাদরাসার প্রধান শিক্ষক হাফেজ আবদুল কাইয়ুম, মীরপুর পাবলিক উচ্চবিদ্যালয়ের ধর্মীয় শিক্ষক সুফি মাওলানা এখলাছুর রহমান, লতিফিয়া হাফিজিয়া মাদরাসার প্রধান শিক্ষক আজিজুল হক, চিলাউড়া হাফিজিয়া মাদরাসার শিক্ষক হাফেজ ছামির হোসেন, হবিবপুর দক্ষিনপাড়া হাফিজিয়া মাদরাসার শিক্ষক হাফেজ ফজলুর রহমান, কচুরকান্দি হাফিজিয়া মাদরাসা শিক্ষক হাফেজ সেবুল আহমদ, জগন্নাথপুর পশ্চিম উপজেলা তালামীযের সভাপতি সাইদুর রহমান, সহ সভাপতি আবদুল কুদ্দুস মুন্না, পূর্ব উপজেলা সহ সভাপতি জুবায়ের আহমদ, সাধারণ সম্পাদক সেজু কোরেশী, পৌর সাবেক সভাপতি আখতার হোসেন, বর্তমান সভাপতি ইমরান আহমদ, সহ সভাপতি বুরহান উদ্দিন রাসেল, সাধারণ সম্পাদক করিম উদ্দিন সাজু প্রমুখ।

আলোচনা সভা শেষে পবিত্র ঈদে মীলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে এক মুবারক র‍্যালী বের করা হয়। র‍্যালী জগন্নাথপুর পৌর পয়েন্ট হয়ে অডিটোরিয়ামে এসে শেষ হয়।