• ১৫ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ৬ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

ছাতক পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে নারী কাউন্সিলরের মামলা প্রতিবাদে নাগীরক সমাবেশ

bilatbanglanews.com
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ২, ২০২১
ছাতক পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে নারী কাউন্সিলরের মামলা প্রতিবাদে নাগীরক সমাবেশ

ছাতক প্রতিনিধি:ছাতকে নারী কাউন্সিলর কর্তৃক পৌর মেয়র আবুল কালাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়েরে প্রতিবাদী হয়ে উঠেছে পৌর কাউন্সিলর, পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ পৌরবাসী। টানা চারবারের নির্বাচিত পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে মানহানীকর বানোয়াট মামলা প্রত্যাাহার এবং নারী কাউন্সিলর তাসলিমা জান্নাত কাকলীর বিরুদ্ধে কঠুর আইনী ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী করেছেন পৌরবাসী। বৃহস্পতিবার দুপুরে পৌরসভার সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত পৌর পরিষদ কর্তৃক আয়োজিত এক নাগরীক সমাবেশ এ দাবী তুলেন বক্তারা। নাগরীক সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, পৌর কাউন্সিলর জসিম উদ্দিন সুমেন, ইরাজ মিয়া, লিয়াকত আলী, হাজী নাজিমুল হক, হাজী ছালেক মিয়া, আফরুজ মিয়া, রশিদ আহমদ, শফিকুল ইসলাম, নারী কাউন্সিল নুরেছা বেগম, সাবেক কাউন্সিলর ধন মিয়া,
সুদীপ কুমার দে, মাসুক মিয়া, সূধী জনদের মধ্যে এড. পীযুষ ভট্টাচার্য্য, আব্দুল মমিন চৌধুরী, আব্দুল ওদুদ, প্রাক্তন অধ্যাপক হরিদাস রায়, হাজী নূর মিয়া তালুকদার, সামছুদ্দিন আহমদ, রবিন্দ্র কুমার দাস, হাজী আবুল হায়াত, গোলাম কিবরিয়া, আশরাফুল জামান ভূইয়া, আয়না মিয়া, বাবুল পাল, শিখা রানী দে প্রমুখ। এসময় এনামুল হক ইদন, হাজী সামছুল আলম, আশ্রব আলী, লায়েক মিয়া, সুমন আহমেদ এখলাছ, রুকন চৌধুরী, বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহাজাহান হারিছ আলী, চম্পু দত্ত সহ প্রতি ওয়ার্ডের গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য পৌর শহরে চলাচলরত ইজবাইক ষ্ট্যান্ড থেকে অবৈধ চাঁদা আদায় নিয়ে ষ্ট্যান্ড ম্যানেজার আতিকুল ইসলামের সাথে ৪,৫ ও ৬ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর তাসলিমা জান্নাত কাকলীর বিরোধ সৃষ্টি হয়। বিষয়টি ষ্ট্যান্ড ম্যানেজার বিচার চেয়ে মেয়র বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগ থেকে জানা যায়, শহরের পশ্চিম বাজারস্থ ইজিবাইক ষ্ট্যান্ডের ম্যানেজারের কাছ থেকে দু’বারে ৫ হাজার টাকা আদায় করেন নারী কাউন্সিলর কাকলীর স্বামী মাছুম আহমদ। এতে সন্তোষ্ট না হয়ে তা প্রতি মাসে চাঁদা দেয়ার দাবী জানান মাছুম। এ নিয়ে গত রোববার তার কক্ষে ইজিবাইক ষ্ট্যান্ডের লোকজনকে নিয়ে বৈঠক করছিলেন মেয়র। এ সময় নারী কাউন্সিলর কাকলী এ কক্ষে প্রবেশ করে মেয়রের সাথে বাক-বিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন। এসময় কক্ষে উপস্থিত পৌর কাউন্সিলর ইরাজ মিয়া জানান, ইজিবাইক শ্রমিকরা বিচার প্রার্থী হওয়ায় এ নারী কাউন্সিলর মেয়র ও শ্রমিকদের প্রতি রণ মুর্ত্তি ধারন করেন। কোনভাবেই তাকে নিবারন করা যাচ্ছিল না। এক পর্যায়ে তিনি অকথ্যভাষায় গালাগাল সহ মোবাইল ফোনে তার স্বামী ও স্বজনদের ডেকে এনে পৌর কার্যালয়ে তান্ডব চালান এসময় পৌর কার্যালয়ে এক ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এ ঘটনায় ২৭ আগষ্ট পৌর কর্মচারী দিপ্ত বনিক বাদী দ্রুত বিচার আইনে নারী কাউন্সিলর তাসলিমা জান্নাত কাকলী, তার স্বামী মাছুম আহমদ, ভাই নোমান ইমদাদ কানন ও কার্জনের নাম উল্লেখ করে আরো অজ্ঞাত ২০-২৫ জনের বিরুদ্ধে ছাতক থানায় একটি মামলা(নং ২৮) দায়ের করেন। কাউন্সিলর ও পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অভিযোগ, নারী কাউন্সিলর কাকলী তার অপকর্ম আড়াল করতেই মেয়রের বিরুদ্ধে এমন জঘন্য মিথ্যার আশ্রয় নিয়েছেন।