• ২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ১২ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

ধর্মপাশায় অপহরণ মামলার নাটক ফাঁস,প্রতিবাদে মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচি

bilatbanglanews.com
প্রকাশিত আগস্ট ২৯, ২০২১
ধর্মপাশায় অপহরণ মামলার নাটক ফাঁস,প্রতিবাদে মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচি

সুনামগঞ্জ  প্রতিনিধি:ধর্মপাশা উপজেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি নাদিম কবির কে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার ও দ্রুত আইনের আওতায় আনার দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার সকাল ১১ টায়  ধর্মপাশা উপজেলা পরিষদ এর সামনে ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামীলীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের উদ্যোগের কয়েক হাজার মানুষের অংশগ্রহণে ঘন্টাব্যাপী এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন,
ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুখাইড় রাজাপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মোকারম হোসেন তালুকদার এলাকায় একজন জনপ্রিয় মানুষ।  দীর্ঘদিন ধরে এলাকার মানুষের সেবা করে আসতেছেন। তার জনপ্রিয়তা দেখে কিছু কুচক্রী মহল নানা ষড়যন্ত্র করে আসছে।  ষড়যন্ত্রের ধারাবাহিকতা মোকাররম হোসেন তালুকদারের  বিরুদ্ধে মিথ্যা অপহরণ  মামলার নাটক সাজানো হয়েছে। অপহরণ নাটকের কাহিনি ফাঁস হয়েছে।   এই নাটকের মূল হোতা  ধর্মপাশা উপজেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি নাদিম কবির।   এজন্য  নাদিম কবির কে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার ও দ্রুত আইনের আওতায় নিয়ে আসার দাবি জানাচ্ছি। এসময় বক্তারা নাদিম কবিরের শাস্তি দাবি জানিয়ে স্লোগান দেন ।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামীলীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক রুহুল আমিন,  সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সুলতান মজুমদার, উপজেলা আওয়ামীলীগের কোষাধ্যক্ষ তুবলব আহমেদ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য বাহারাম হোসপন তৈমুর,  সদস্য খান বাহাদুর,  উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক একরাম হোসেন, উপজেলা শ্রমিকলীগের প্রচার ও  প্রকাশনা সম্পাদক সেলিম তালুকদার, উপজেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি আরমান আহমেদ,উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মেহেদি হাসান বাবর,উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাকিল মাহমুদ খান প্রমুখ।

ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোকাররম হোসেন তালুকদার বলেন, একটি নদীর ইজারা নিয়ে নাদিম কবিরের সাথে বিরোধ দেখা দেয়। সেই বিরোধের জেরে এবং আগামী ইউপি নির্বাচনে আমাকে আটকানোর জন্য স্বপ্নের তরী সমিতির সভাপতি কে নিয়ে মিথ্যা অপহরণের নাটক সাজায়। তার ভয়ে স্বপ্নের তরী সমিতির সভাপতি নবী হোসেন সুনামগঞ্জ পালিয়ে গেলে সে থানায় আমার নামে অপহরণ মামলা দেয়।  পরে পুলিশ স্বপ্নের তরী সমিতির সভাপতির সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান তিনি নাদিমের ভয়ে লুকিয়ে আছেন তাকে অপহরণ করে নি। নবী হোসেন থানায় এসে জবানবন্দি দেয়।  আগামী ইউপি নির্বাচনে আমি নির্বাচন করবো।  এলাকায় আমার জনপ্রিয়তা দেখে কিছু কুচক্রী ষড়যন্ত্র শুরু করেছে।  আমি এদের বিচার চাই।