• ১৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ১১ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

যুক্তরাজ্যে রেড তালিকাভূক্ত দেশের যাত্রীদের হোটেল কোয়ারেন্টাইন ফি বাড়ল

bilatbanglanews.com
প্রকাশিত আগস্ট ২৮, ২০২১
যুক্তরাজ্যে রেড তালিকাভূক্ত দেশের যাত্রীদের হোটেল কোয়ারেন্টাইন ফি বাড়ল

 

বিবিএন ডেস্ক: রেড তালিকাভূক্ত দেশ থেকে যাত্রী হিসেবে যুক্তরাজ্যে প্রবেশ করলেই হোটেল কোয়ারেন্টানের জন্য জনপ্রতি ২২৮৫ পাউন্ড দিতে হবে। কেউ যদি এই আইন অমান্য করেন তাকে জরিমানা দিতে হবে ১০,০০০ পাউন্ড। যদিও ১২ আগস্টের পূর্বে হোটেল কোয়ারেন্টাইনের জন্য নির্ধারণ ছিলো ১৭৫০ পাউন্ড এবং একটি পরিবারের জন্য ৩০৩০ পাউন্ড।

১২ই আগস্ট থেকে হোটেল কোয়ারেন্টাইন বৃদ্ধির ফলে রেড তালিকাভূক্ত দেশের যাত্রীর সংখ্যা অস্বাভাবিক হারে কমে গেছে। একজন যাত্রীকে ১০ দিনের হোটেল কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক এবং এর জন্য দিতে হবে ২২৮৫ পাউন্ড।
১১ বৎসরের উপরে বয়সীর জন্য ১৪৩০ এবং ৫ থেকে ১১ বৎসর বয়সীদের জন্য ৩২৫ সেই সাথে ৫ বৎসরের নিচের শিশুরা ফ্রি থাকার সুবিধা পাবে।
যুক্তরাজ্যের হিথ্রো বিমান বন্দর, গেটউইক বিমান বন্দর, লন্ডন সিটি বিমান বন্দর, বার্মিংহ্যাম বিমান বন্দর, ব্রিস্টল বিমান বন্দর, ফ্রানবারক বিমান বন্দর, বীগেইন হিল বিমান বন্দর দিয়ে বিশ্বের যে সব দেশে করোনাভাইরাস মহামারির আক্রান্ত এবং মৃত্যর সংখ্যা বেশী এবং ঝুঁকিপূর্ন সেই সব দেশের যাত্রীরা প্রবেশ করলেই সরকারের দেওয়া গাইডলাইন্স মেনে চলতে হবে। অমান্য করলেই গুনতে হবে জরিমানার পাহাড়।

রেড তালিকার শীর্ষে আছে বাংলাদেশ। এজন্য বাংলাদেশ যাত্রীর সংখ্যা অস্বাভাবিক হারে কমে গেছে। কভিড-১৯ পূর্বে যেখানে প্রতিদিন ফ্লাইটের জন্য যাত্রীদের দাবী ছিলে। সপ্তাহে ৫টি ফ্লাইটেই উপচেপড়া যাত্রীদের ভীড় ছিলো। কভিড-১৯ বা করোনাভাইরাস মহামারির কারণে। সপ্তাহে মাত্র একটি ফ্লাইট যাতায়াত করছে তাও আবার অর্ধেকের চেয়ে কম যাত্রী নিয়ে।

শুধু মাত্রা ইমার্জেন্সী ছাড়া কেউই এই পরিস্থিতির মধ্যে বাংলাদেশ যাচ্ছেন না এবং আসছেন না। যাত্রী যাতায়াত না করায় ইংল্যান্ডের অনেক বাংলাদেশী ট্রাভেল এজেন্সি গুলি আছে হুমকির মুখে। এমন কি অনেক বড় বড় প্রতিষ্টান ব্যবসা ছেড়ে দিতে বাধ্য হচ্ছে।

সিগন্যাল লাইটের আদলে কভিড-১৯ বা করোনাভাইরাস মহামারির আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যা ও ঝুঁকির উপর নির্ভর করে রেড, এ্যাম্বার এবং গ্রীন তালিকা করা হয়েছে। গ্রীন বা এ্যাম্বার তালিকার যাত্রীদের হোটেল কোয়ারেন্টাইন প্রয়োজন নাই। শুধু করোনার দুই ভ্যাকসিন দেওয়া এবং করোনার নেগেটিভ সার্টিফিকেট থাকলেই হবে কিন্তু রেড তালিকাভুক্ত দেশের যাত্রীদের দুই ডোজ ভ্যাকসিন এবং করোনার নেগেটিভ সার্টিফিকেট থাকলেও যুক্তরাজ্যে প্রবেশ করলে হোটেল কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।