• ২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ১২ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

বাল্য বিবাহ বন্ধ করলেন বিশ্বম্ভরপুর ইউএনও 

bilatbanglanews.com
প্রকাশিত জুন ৭, ২০২১
বাল্য বিবাহ বন্ধ করলেন বিশ্বম্ভরপুর ইউএনও 
লতিফুর রহমান রাজু, সুনামগঞ্জ: সুনামগঞ্জ জেলার বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার সলুকাবাদ ইউনিয়নের ভাদেরটেক গ্রামে  একটি   বাল্য বিবাহ বন্ধ করলেন বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সাদি উর রহিম জাদিদ ।
 ৭ জুন(সোমবার) বিশ্বম্ভরপুর উপজেলাধীন ভাদেরটেক গ্রামের একটি বাড়িতে ১১ বছরের  একটি মেয়ের বিয়ের আয়োজন চলছিল। এমন সংবাদের ভিত্তিতে সঠিক তথ্য ও প্রমানাদি নিয়ে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য শাহপরানকে ফোন দিলে তাহার ফোন বন্ধ থাকে। পরে  তিনি সরেজমিনে বিশ্বম্ভরপুর থানার ফোর্সসহ সলুকাবাদ ইউনিয়নের ভাদেরটেক গ্রামে মাহমুদ আলীর      বাড়িতে গিয়ে  উপস্থিত হন এবং ঘটনার সত্যতার প্রমান পান। বিয়ের বর সুহেল আহমদ(৩0)   বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার সলুকাবাদ ইউনিয়নের বাঘবেড় বাজারস্ত মৃত ছমির উদ্দিনের পুত্র এবং     কনে   ভাদেরটেক গ্রামের মাহমুদ আলীর নাবালিকা কনে। , ,  ইউএনও বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাঃ  মৌমিতা চক্রবর্তীকে   দিয়ে  বয়স প্রমানের জন্য ডাক্তারী পরীক্ষা করান। এবং বয়স বিয়ের অনুকুলে নয় , এবং  নাবালিকা প্রমানিত হয়।  নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট হিসেবে  অভিভাবকদের উপস্থিতি সহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিদের স্বাক্ষী করে মাহমুদ আলী’র মুচলেকা গ্রহন করেন যে, ‘আমার মেয়ের বয়স ১৮বছর না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিব না’।
এতে উভয়পক্ষের অভিভাবক গণ ও সম্মতি দেন। এব্যপারে  ইউএনও সাদি উর রহিম জাদিদ বলেন বাল্য বিবাহ একটি অপরাধ, এতে একটি বা দুটি প্রাণ নয় পুরো দুটি পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত    হয়ে পরে।আমি শতভাগ বাল্যবিবাহ মুক্ত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।এ ব্যপারে এলাকাবাসী, সুশীল সমাজ   ও গণ্যমান্যব্যক্তিবর্গ  সকলের সম্মিলিত সহযোগিতা, এবং  প্রশাসনিক হস্তক্ষেপেই পারে বাল্যবিবাহের মত অপরাধ ।