• ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ৯ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

সাংবাদিক রোজিনার মুক্তির দাবিতে লন্ডন-বাংলা প্রেসক্লাবের মানববন্ধন

bilatbanglanews.com
প্রকাশিত মে ২১, ২০২১
সাংবাদিক রোজিনার মুক্তির দাবিতে লন্ডন-বাংলা প্রেসক্লাবের মানববন্ধন

বিবিএন নিউজ ডেস্ক : বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় সংবাদপত্র ‘দৈনিক প্রথম আলো’র স্বনামখ্যাত সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ে আটকে নাজেহালের প্রতিবাদে ব্রিটেনের বাংলা মিডিয়ার প্রতিনিধিত্বকারী সংগঠন ‘লন্ডন-বাংলা প্রেসক্লাব‘ এর উদ্যোগে ১৯ মে বুধবার পূর্ব লন্ডনের ঐতিহাসিক আলতাব আলী পার্কে এক বিশাল প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এই প্রতিবাদ সভায় বিলাতের প্রিন্ট, অনলাইন ও ইলেকট্রনিক গণমাধ্যমের সাংবাদিকবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন। তবে করোনার কারনে ইচ্ছে থাকা স্বত্ত্বেও অনেক সাংবাদিক স্বশরীরে উপস্থিত না হতে না পারলেও প্রতিবাদ সমাবেশের প্রতি একাত্বতা প্রকাশ করেছেন।

প্রতিবাদ সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি ও সাপ্তাহিক পত্রিকা সম্পাদক মোহাম্মদ এমদাদুল হক চৌধুরী এবং সভা পরিচালনা করেন ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এবং চ্যানেল এস-এর চীফ রিপোর্টার মুহাম্মদ জুবায়ের। সমাবেশে বক্তারা রোজিনা ইসলামের উপর নির্যাতন ও হয়রানীর সুষ্টু তদন্তের জন্য একটি স্বাধীন বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিশন গঠনের দাবী জানান।

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টে মামলা | News24  TV | Twenty-Four Hour Bangladeshi News Channel

সমাবেশে বক্তারা বলেন, রোজিনা ইসলামকে সচিবালয়ে পাঁচ ঘণ্টা আটকে রাখার ঘটনা রীতিমতো উদ্বেগজনক। সেখানে তাঁর উপর মানসিক ও শারীরিক নির্যাতনের যে ছবি এবং ভিডিও দেখা গেছে তা একটি সরকারের সচিবালয়ের সরকারি কর্মকর্তাদের আচরণ এবং পেশাদারিত্বকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে।সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের নি:শ্বর্ত মুক্তি ও বির্তকিত অফিসিয়্যাল সিক্রেসি এ্যাক্ট ১৯২৩ বাতিলের দাবী জানিয়েছেন তারা। আয়জিত প্রতিবাদ সমাবেশে ব্রিটেনে কর্মরত টেলিভিশন, প্রিন্ট ও অন লাইনে কর্মরত সাংবাদিক ও মিডিয়া কর্মীরা অংশ নেন।

প্রতিবাদ সমাবেশে এমদাদুল হক চৌধুরী বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নানা দুর্নীতি ও অনিয়ম নিয়ে রোজিনা ইসলাম বেশ কিছু অনুসন্ধানী প্রতিবেদন করেছেন। ফলে সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মীদের কাছে খুব ভালোভাবেই পরিচিত। তাঁকে আটকে রেখে যেভাবে হেনন্তা করা হয়েছে, তাঁর সাংবাদিক পরিচয় নিয়ে যেভাবে বারবার প্রশ্ন করা হয়েছে এবং পরে যে প্রক্রিয়ায় মামলা দেওয়া হয়েছে—এতে পুরো ঘটনাটি পরিকল্পিত মনে করার যথেষ্ট কারণ রয়েছে। তিনি বলেন, রোজিনা ইসলামকে টার্গেট করার মাধ্যমে সরকার ও আমলাদের দুর্নীতির বিষয়ে অনুসন্ধান না করতে একটি বার্তা দেওয়ার চেষ্টা হয়েছে।

আমলাদের দুর্নীতি নিয়ে বেশি বেশি অনুসন্ধানী প্রতিবেদন করার মাধ্যমে প্রশাসনের দুর্নীতিবাজদের এই প্রচেষ্টা রুখে দিতে হবে।

বাংলাদেশ বুলেটিন | BD Bulletin

সাংবাদিকবৃন্দের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন, ড: রেনু লুৎফা, মহিব চৌধুরী, কে এম আবু তাহের চৌধুরী,মুহাম্মদ বেলাল আহমদ, নজরুল ইসলাম বাসন, উর্মি মাযহার, সৈয়দ আনাস পাশা, ব্যারিস্টার তারেক চৌধুরী, আ স ম মাসুম, মোয়াজ্জেম হোসেন, বুলবুল আহমদ, শামিম চৌধুরী, শামসুল আলম লিটন, মুসলেহ উদ্দিন, মিসবাহ জামাল,সৈয়দ মনসুর উদ্দিন, সৈয়দা সায়মা আহমদ, তাইছির মাহমুদ, তানভীর আহমেদ, তবারুকুল ইসলাম, মোস্তাক বাবুল, শওকত মাহমুদ, জুয়েল রাজ, মুরাদ চৌধুরী, জাকির হোসেন, ফজলুল হক, আবদুল কাইয়ুম, সালেহ আহমদ, রেজাউল করিম মৃধা, রুপি আমিন,পলি রহমান, রহমত আলী, আবদুল মুনিম জাহিদি ক্যারল, আহাদ চৌধুরী বাবু, আহাদ আহমদ , সাজু আহমদ, হেফাজুল করিম রাকিব, এনাম চৌধুরী, আমিমুল ইসলাম তামিম, আনোয়ারউল ইসলাম অভি, মিনহাজ খান, আলাউর রহমান শাহিন, মাহবুব আলী খানসুর, সারোয়ার হোসেন প্রমুখ।