• ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ , ১লা জিলহজ, ১৪৪৩ হিজরি

দিরাই পৌরসভার নির্বাচন দুই দলেই বিদ্রহী প্রার্থী

bilatbanglanews.com
প্রকাশিত ডিসেম্বর ২৬, ২০২০
দিরাই পৌরসভার নির্বাচন দুই দলেই বিদ্রহী প্রার্থী
  লতিফুর রহমান রাজু, সুনামগঞ্জ: সুনামগঞ্জের দিরাই পৌরসভা নির্বাচন ২৮ ডিসেম্বর। নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আটপ্রার্থী। বড় দুই দলেই রয়েছে বিদ্রোহী প্রার্থী। আওয়ামী লীগ থেকে অংশ নিচ্ছেন দু’জন। দলীয় মনোনয়নে যুবলীগ নেতা বিশ্বজিৎ রায় নির্বাচন করছেন। দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বর্তমান মেয়র মোশাররফ মিয়া। বিএনপি থেকেও অংশ নিয়েছেন দু’জন। দলীয় প্রার্থী সাবেক ছাত্রদল নেতা অ্যাডভোকেট ইকবাল হোসেন চৌধুরীর পাশাপাশি বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মাঠে আছেন উপজেলা বিএনপি’র উপদেষ্টা মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কাইয়ুম।
দুই দলেই বিদ্রোহী প্রার্থী থাকায় অস্বস্তিতে আছেন নেতা-কর্মীরা। এই পৌরসভায় প্রথমবার ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) পদ্ধতিতে ভোট নেয়া হবে। দিরাই উপজেলা নির্বাচন কার্যালয়ের সূত্র জানায়, দিরাই পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে ১২টি ভোটকেন্দ্রে ৬২টি কক্ষে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ হবে। নির্বাচনে মেয়র পদে আটজন, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৫৩ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। যাচাই-বাছাইয়ে ৬ কাউন্সিলর প্রার্থী বাদ পড়েন।

নির্বাচনকে সামনে রেখে পোষ্টারে পোষ্টারে চেয়ে গেছে দিরাই শহরের অলিগলি, মোডে মোড়ে ও গাছ গাছালির ঢালপালায়।  আওয়ামী লীগ-বিএনপি’র প্রার্থী চুড়ান্ত লড়াইয়ে থাকলেও স্থানীয়প্রভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় উঠে এসেছেন বর্তমান মেয়র ও দিরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মোশারফ মিয়া।

বিগত ২১ বছর পূর্বে দিরাই পৌরসভা প্রতিষ্ঠিত হলেও পৌর নাগরিকের সুবিধা থেকে বঞ্চিতই রয়েছে বেশীরভাগ ওয়ার্ডের জনগণ। তবে গত ৫ বছরে মুল রাস্তা, পৌরভবনসহ গুরুত্বপর্র্ণ কিছু উন্নয়ন করায় বর্তমান মেয়র মোশারফ মিয়ার প্রতি সাধারণ ভোটের ইতিবাচক মনোভাব পরিলক্ষিত করা যাচ্ছে।

ভাটি অঞ্চল খ্যাত দিরাই পৌরসভার চতুর্থ নির্বাচন এটি। আওয়ামীলীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও বর্তমান প্যানেল মেয়র বিশ্বজিৎ রায়কে নৌকার প্রার্থী করা হয়েছে। পৌর ছাত্রদলের সাবেক প্রতিষ্ঠিতা সভাপতি অ্যাডভোকেট ইকবাল হোসেন চৌধুরী বিএনপি’র মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন। দিরাইয়ে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে দলীয় প্রার্থীকে বিজয়ী করতে দিনরাত পরিশ্রম করলেও আ.লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী বিশ্বজিৎ এর পক্ষে দলীয় নেতাকর্মীদের খুব একটা দেখা যায়নি। এ দিকে বর্তমান মেয়র ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মোশারফ মিয়া জগ প্রতীক নিয়ে মাঠে ময়দানে চষে বেড়াচ্ছেন। যে দিকেই যাচ্ছেন ভোটার ও সমর্থকদের উপছে পড়া ভীড় লক্ষ্য করা গেছে।

দিরাই পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাপা (এরশাদ), জমিয়তে উলামাসহ ৮জন প্রার্থী নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তবে অন্যান্য প্রার্থীদের প্রচার প্রচারণা তেমন একটা চোখে পড়ার মত নয়। মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও স্বতন্ত্র (জগ প্রতীক) প্রার্থী।

এ দিকে দিরাই পৌরসভার সাধারণ মানুষ তাদের প্রত্যাশা পূরণ করতে সুষ্টু নির্বাচন দাবি জানিয়েছেন প্রশাসনের কাছে।

তাদের বক্তব্য-দিরাই পৌরসভার বয়স ২১ বছর হলেও উন্নয়ন তেমন হয়নি। বর্তমানে ৮ প্রার্থীর মধ্যে যিনি রাস্তাঘাট, ড্রেনেজ ব্যবস্থা, নিরাপদ পানির ব্যবস্থা, বেকারত্ব দূরীকরণে কার্যকর পদক্ষেপ নিবেন তাকেই ভোট দিয়ে মেয়র নির্বাচিত করবেন।

দিরাই পৌরসভা ১৭টি গ্রাম নিয়ে গঠিত হয়। পৌরসভায় বর্তমান ভোটার ২১ হাজার ৩ শ ৭৯ জন। তম্মধ্যে পুরুষ ১০ হাজার ৫৫২ নারী ১০ হাজার ৮২৭।

আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী বিশ্বজিৎ রায় বলেন, ‘দিরাই শাল্লার মানুষ নৌকাকে ভালবাসেন। বঙ্গবন্ধুর নৌকা, শেখ হাসিনার নৌকা, মরহুম সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের নৌকা। দলীয় সভানেত্রী আমাকে নৌকা মার্কা দিয়েছেন দিরাই পৌরবাসীর উন্নয়ন করার জন্য। আমি বিশ্বাস করি দিরাই পৌরবাসী নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে দেশের উন্নয়নের পাশাপাশি দিরাই পৌরসভার উন্নয়নে কার্যকর ভূমিকা রাখবেন। আমি তিন বারের পৌর কাউন্সিলর হিসেবে পৌরবাসীর সাথে ছিলাম। আমি জানি কিভাবে পৌরসভার উন্নয়নে কাজ করতে হয়। তবে নৌকার বিপক্ষে বর্তমান মেয়র মোশারফ মিয়া স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে কালো টাকা ও স্থানীয় প্রভাব বিস্তারের চেস্টা করছেন। এটা বন্ধ করতে রিটার্নিং কর্মকর্তাকে জানিয়েছি।’

এ ব্যাপারে ধানের শীষের প্রার্থী অ্যাডভোকেট ইকবাল চৌধুরী বলেন, ‘বিগত ২১ বছর ধরে দিরাই পৌরসভার কার্যত উন্নয়ন হয়নি। ময়লা আর্বজনায় ভরপুর। সুষ্টু নির্বাচনের সুযোগ পেলে দিরাই পৌরবাসী ধানের শীষে ভোট দিয়ে অবশ্যই বিজয়ী করবেন। আমি বিজয়ী হলে দিরাই পৌরসভার বেকার যুব-যুবতীদের উপযুক্ত প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করবো এবং পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে সুসময় বন্টন করে পৌর নাগরিকের সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করব। মাদক মুক্ত পৌরসভা গড়ব।’

আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র জগ প্রতীকের বর্তমান মেয়র মোশারফ মিয়া বলেন, ‘আমি গত ৫ বছরে ব্যাপক উন্নয়ন করেছি। রাস্তাঘাট, নতুন পৌরভবনসহ অনেক উন্নয়ন করেছি। আমাকে নির্বাচন থেকে সরিয়ে রাখতে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক হত্যা মামলায় আসামী করা হয়েছে। আমি জণগনের চাপে নির্বাচনে দাড়িয়েছি। দিরাই পৌরবাসী অবশ্যই আমাকে জগ প্রতীকে ভোট দিয়ে পূনরায় পৌরসভার অসম্পর্র্ণ কাজ সম্পন্ন করার সুযোগ দিবেন।’